Fastest Search Bar - Type and see the magic!
Generic selectors
Exact matches only
Search in title
Search in content
Search in posts
Search in pages
Shesher Kobita-min

শেষের কবিতা – Shesher Kobita – রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর – Rabindranath Tagore – ফ্রি পিডিএফ ডাউনলোড | Free PDF Download

শেষের কবিতা – Shesher Kobita – রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর – Rabindranath Tagore – এই বইটি ফ্রি পিডিএফ ডাউনলোড করুন এখনি! – Download free PDF all books from our PDF Library

মহান আল্লাহ আমাদের নির্দেশ দিয়েছেন –

পড়ো তোমার প্রভুর নামে, যিনি সৃষ্টি করেছেন। (সূরা আলাকঃ০১)

তাই আমরা আমাদের এই ছোট উদ্যোগটি নিয়েছি সকল প্রকার বই সমূহকে আপনাদের সামনে উপস্থাপন করার। জানি আমরা দুর্বল, তবে আল্লাহ তো সর্বশক্তিমান! তিনি চাইলে কি না পারেন। তার উপর ভরসা করেই এই ওয়েবসাইট চলতে থাকবে ইনশাআল্লাহ! আপনাদের যদি কোনো ইবুক দরকার হয়, কোনো বইয়ের পিডিএফ দরকার হয় যা অনলাইনে এখনো হয়তোবা আসেনি, আমরা ইনশাআল্লাহ সেই বইয়ের পিডিএফ করে যত দ্রুত সম্ভব আপলোড দিব। আল্লাহ আমাদের তৌফিক দান করুন! 

2020 New PDF Books Download Free Bangla Library Online Database, EPUB, Mobi, Etc. Formats too be added in future!

শেষের কবিতা – Shesher Kobita – বইটির এক ঝলকঃ

অমিত রায় ব্যারিস্টার। ইংরেজি ছাদে রায় পদবী “রয়” ও “রে” রূপান্তর যখন ধারণ করলে তখন তার শ্রী গেল ঘুচে কিন্তু সংখ্যা হুল বৃদ্ধি। এই কারণে, নামের অসামন্যতা কামনা করে অমিত এমন একটি বানান বানালে যাতে ইংরেজ বন্ধু ও বন্ধুনীদের মুখে তার উচ্চারণ দাঁড়িয়ে গেল– অমিট রায়ে ।

অমিতর বাপ ছিলেন দিগৃবিজ্প়ী ব্যারিস্টার। যে পরিমাণ টাকা তিনি জমিয়ে গেছেন সেটা অধস্তন তিন পুরুষকে অধঃপাতে দেবার পক্ষে ষথেষ্ট । কিন্ত পৈতৃক সম্পত্তির সাংঘাতিক সংঘাতেও অমিত বিনা বিপত্তিতে এ যাত্রা টিকে গেল।

কলিকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ে বি. এ’র কোঠায় পা দেবার পূর্বেই অমিত অক্সূফোর্ডে ভর্তি হয়; সেখানে পরীক্ষা দিতে দিতে এবং না দিতে দিতে ওর সাত বছর গেল কেটে। বুদ্ধি বেশি থাকাতে পড়াঙ্খনো বেশি করে নি, অথচ বিদ্যেতে কমতি আছে বলে ঠাহর হয় না। ওর বাপ ওর কাছ থেকে অসাধারণ কিছু প্রত্যাশা করেন নি। তার ইচ্ছে ছিল, তার একমাত্র ছেলের মনে অক্সূফোর্ডের রঙ্জ এমন পাকা করে ধরে যাতে দেশে এসেও ধোপ সয়।

অমিতকে আমি পছন্দ করি। খাসা ছেলে। আমি নবীন লেখক, সংখ্যায় আমার পাঠক স্বল্প, যোগ্যতায় তাদের সকলের সেরা অমিত। আমার লেখার ঠাট-ঠমকটা ওর চোখে খুব লেগেছে। ওর বিশ্বাস, আমাদের দেশের সাহিতাবাজারে যাদের নাম আছে তাদের স্টাইল নেই। জীবনৃষ্টিতে উট জন্তটা নড়বড়ে, বাংলা-সাহিত্যের মতো ন্যাড়া ফ্যাকাশে মরুত্মিতেই তার চলন । সমালোচকদের কাছে সময় থাকতে বলে রাখা ভালো, মতট! আমার লয়।

অমিত বলে, ফ্যাশানটা হল মুখোশ, স্টাইলটা হল মুখ্শ্রী। ওর মতে যারা সাহিত্যের ওমরাও- দলের, যারা নিন্দের মল রেখে চলে, স্টাইল তাদেরই । আর যারা আমলা-দলের, দশের মন রাখা যাদের বাবসা ফ্যাশান তাদেরই। বঙ্কিমি স্টাইল বহ্কিমের লেখা “বিষবৃক্ষে”্, বক্কিম তাতে নিজেকে মানিয়ে নিয়েছেন; বঙ্কিমি ফ্যাশান নসিরামের লেখা “মনোমোহনের মোহনবাগানে”, নসিরাম তাতে বঞ্িমকে দিয়েছে মাটি করে। বারোয়ারি তাবুর কানাতের নীচে ব্যাবসাদার লাচওয়ালির দর্শন মেলে, কিন্তু শুভদৃষ্টিকালে বধূর মুখ দেখবার বেলায় বেনারসি ওড়নার ঘোমটা চাই। কানাত হল ফ্যাশানের, আর বেনারসি হুল স্টাইলের, বিশেষের মুখ বিশেষ রষ্ডের ছায়ায় দেখবার জন্যে। অমিত বলে, হাটের লোকের পায়ে-চলা রাস্ভার বাইরে আমাদের পা সরতে ভরসা পায় লা বলেই আমাদের দেশে স্টাইলের এত অনাদর। দক্ষষজ্ঞের গল্পে এই কথাটির পৌরাণিক ব্যাখ্যা মেলে । ইন্দ্র চন্দ বরুণ একেবারে স্বর্গের ফ্যাশানদুরস্ত দেবতা, যাজ্িকমহলে তাদের নিমন্ত্রণও জুটত । শিবের ছিল স্টাইল, এত ওরিজিন্যাল যে, মন্ত্রপড়া ফন্্রমানেরা তাঁকে হব্রকব্য দেওয়াটা বেদন্তুর বলে জানত। অক্সুফোর্ডের বি. এর মুখে এ-সব কথা শুনতে আমার ভালে! লাগে । কেননা, আমার বিশ্বাস, আমার লেখায় স্টাইল আছে– সেইজনোই

উপরে উল্লেখিত বইটির ফ্রি পিডিএফ ডাউনলোড করুন নিচের ডাইরেক্ট লিঙ্ক থেকে। যদি কোনো সমস্যা হয়, কমেন্ট করে জানাবেন।

লিঙ্কে ক্লিক করার পর ডাইরেক্ট ডাউনলোড হবে ইনশাআল্লাহ্‌। ধন্যবাদ! 

প্রতিদিন নতুন নতুন বই আপলোড দেয়া হচ্ছে। আপনি যদি বই পিপাসু হয়ে থাকেন এবং আপনার যদি ইসলামিক কিংবা অন্যান্য বই পড়ার আগ্রহ থাকে, তবে আমাদের ইমেইল লিস্টে সাবস্ক্রাইব করে রাখুন, বই আপনার কাছে পৌছে কড়া নাড়বে। শেয়ার করুন আমাদের সাইটটি সবার সাথে! প্রতিদিন একবার হলেও ঘুরে যাবেন। এর বেশি কিছু চাইনা আপনাদের কাছে! Free PDF Boi Dot Com

আমাদের সাইটের নাম মনে রাখতে চাইলে সেভ করে রাখুন, কিংবা বুকমার্ক করে রাখুন। বেশি বেশি ভিজিট করুন, বন্ধুদের জানিয়ে দিন।

বই পড়ুন ~ জ্ঞানের আলো ছড়িয়ে দিন!

Leave a Comment

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।